এক যুগেও পরিবর্তন হয়না বাশার- নান্নুরা

news paper

ওমর ফারুক

প্রকাশিত: ২১-১১-২০২৩ বিকাল ৬:৮

29Views

 বিশ্বকাপে ব্যার্থতার পর এখনো স্বপদে বহাল রয়েছে নির্বাচক নান্নু- বাশাররা। এক যুগ পার হলেও অদৃশ্য কারনে নান্নু - বাশারদের বিকল্প পাচ্ছেননা বিসিবি।  ২০১১ সাল থেকেই জাতীয় দলের নির্বাচক প্যানেলে আছেন নান্নু-বাশার। ২০১৭ সাল পর্যন্ত নান্নু দুই প্রধান নির্বাচক আকরাম খান ও ফারুক আহমেদের অধীনে কাজ করেছেন। ২০১৭ সালে ফারুক পদত্যাগের পর প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব পান নান্নু। কয়েক দফা মেয়াদ বেড়ে যা এখনো চলছে।
 
গত বছর ডিসেম্বরে নান্নু-বাশারের মেয়াদ শেষ হলেও কাজ চালিয়ে যেতে বলছে বিসিবি। প্রায় এক যুগ ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্বাচক প্যানেলে আছেন মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। তবে বর্তমান সময়টা তার জন্য সবচেয়ে খারাপ যাচ্ছে! এশিয়া কাপে দলের ভরাডুবির পর চলমান বিশ্বকাপেও ব্যর্থ সাকিবরা। যার বড় দায় পড়ছে নান্নুর কাঁধেও। গত এশিয়া কাপ এবং চলতি বিশ্বকাপ ছাড়াও একাধিক সিরিজ কিংবা আসরের দল নির্বাচন নিয়ে আগেও সমালোচনার মুখে পড়েছেন নান্নু-বাশার। বিশেষ করে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং তামিম ইকবাল ইস্যুতে তারা নির্দিষ্ট কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারেনি। সম্প্রতি এনামুল হক বিজয়কে হঠাৎ করে বদলি হিসেবে দলে ডাকা নিয়েও সমালোচনা হয়েছে। বারবার ব্যার্থতার পরও এখনো নির্বাচকরা স্বপদে থাকা নিয়ে দেশজুড়ে চলছে নানা সমালোচনা। দেশের কোটি ক্রিকেট অনুরাগীদের আবেগ নিয়ে খেলছে বিসিবি, এমনটাই মনে করছেন টাইগর  ভক্তরা। 
 
এদিকে বিশ্বকাপে ব্যার্থতার দায় নিয়ে পাকিস্তান  জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচকের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন ইনজমাম-উল-হক। একই সঙ্গে জুনিয়র নির্বাচক কমিটি থেকেও পদত্যাগ করেছেন।অপরদিকে বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় দায়িত্বে থাকা ক্রিকেট বোর্ডের সবাইকে বরখাস্ত করেছিলেন শ্রীলঙ্কার ক্রীড়া মন্ত্রী। অর্জুনা রানাতুঙ্গাকে দেওয়া হয়েছিল অন্তর্বর্তী চেয়ারম্যানের দায়িত্ব। সরকারি এমন হস্তক্ষেপের কারণে পরে আইসিসির সাময়িক নিষেধাজ্ঞা পেল দেশটির ক্রিকেট।

আরও পড়ুন