কেশবপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে পিতার অভিযোগ

মনিরুজ্জামানকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে

news paper

সোহেল পারভেজ, কেশবপুর

প্রকাশিত: ২৭-৫-২০২৩ দুপুর ১২:৩

15Views

কেশবপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন লিখিত বক্তব্যে উপজেলার পাঁজিয়া ইউনিয়নের মাদারডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল হালিম গাজী জানান, তার এক মাত্র ছেলে মনিরুজ্জামান মনি (১৫)এসএসসি পরীক্ষার্থীকে বাগের হাট ফুসলিয়ে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দিয়েছে ঘাতকরা।  বাগের হাট সদর থানায় লিখিত অভিযাগ করতে চাইলে পুলিশ অপমৃত্যু মামলা নিয়ে এড়িয়ে যেতে চায় বলে অভিযাগ করেন পিতা। শোকাহত পিতা অবিলম্বে ঘাতকদের আটক পুর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে লিখিত বক্তব্যে উল্লখ করা হয়ছে যে, তার এক মাত্র ছেলে মনিরুজ্জামান মনি পাবনা থেকে এবার এস এসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে।  তার ফেসবুকের বন্ধু বাগেরহাট জেলার মোরলগঞ্জ থানার বর্শিবাওয়া এলাকার মিশকাতুল মনির মহুয়ার পরিচয় ঘটে এবং তার ডাকে গত ২২ এপ্রিল ষাটগম্বুজ মসজিদ এলাকায় দেখা হলে পরিকল্পতিভাবে মনিকে আটক করে ১০০ টাকা ষ্ট্রাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে নাম মাত্র বিয়ের নাটক সাজায়। এবং বাগেরহাট ভাড়া বাসায় থাকার ব্যবস্থা করে দেয় । ছেলে মনিরুজ্জামান মনি পাবনা চলে এসে পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ৬টি বিষয় পরীক্ষা শেষ হলে তাকে পুণরায় বাগের হাট ফুসলিয়ে নিয়ে যায়। গত ১৮ মে বাগেরহাট সদর থানার এস আই রবিউল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানায় মনি আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে বাগের হাট সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখি মনির নিথর দেহ সাদা কাপড়ে মোড়ান ছিলো তাকে দেখে সনাক্ত করি আমার মনি।তখন দেখা যায় তার গলায় জুড়া কালো দাগ,দু কেনুই জখম, মুখ দিয়ে রক্ত মিশ্রিত লালা বের হচ্ছে নাকে মুখে ফোলা। আমরা পুলিশকে বারংবার হত্যা করা হয়ছে বলে জানালও পুলিশ কর্ণপাত না কর লাশ বুঝিয়ে দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে তখন আমি তাদের চোখে মুখে ছিল রহস্যজনক ভাব। ঘটনাস্থলে গেলে সেখানে মদের বোতলসহ কনডম ছিলো বাসার ভিতর। নিশ্চিত হত্যাকান্ড ঘটলও পুলিশ শুধু মাত্র সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে । আমাদের কোন কথা পর্যন্ত শোনেনি। থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ভিসরা রিপোর্ট পেলে দেখা যাবে বলে আমাদের বিদায় দেয়।  
শাকাহত পিতা আব্দুল হালিম গাজী জানান, তার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে, যার সাথে নিহত মনির ফেসবুক প্রেমিক কথিত স্ত্রী মহুুয়া,তার মা নিপা বেগম, বাবা মনিরুজ্জামান ও খালা নার্গিস সুলতানা সিমু ও নানী রুবিনা বেগম ভাড়াটিয়াদের সহায়তায় তার ছেলেকে হত্যা করে অপমৃত্যু বলে চালিয়ে দিচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে হত্যাকারিদের দৃষ্টন্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত ও তাদের আটক রাখার দাবি জানানো হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নিহত মনির বোন মনিরা খাতুন শান্তা, চাচা আব্দুল হামিদ গাজী ।


আরও পড়ুন