ঢাকা শনিবার, ২৫ জুন, ২০২২

পদ্মা সেতু : দৃষ্টিনন্দন উন্নয়নে মুখরিত ও সম্ভাবনার নয়া দিগন্তের দারপ্রান্তে দক্ষিণাঞ্চল


সাঈদ ইব্রাহিম,পটুয়াখালী  photo সাঈদ ইব্রাহিম,পটুয়াখালী
প্রকাশিত: ২৩-৬-২০২২ বিকাল ৫:৪০
দৃষ্টিনন্দন উন্নয়নে মুখরিত উপকুলীয় জেলা পায়রার পরে স্বপ্নের পদ্মা সেতুতে নতুন মাইলফলক, তিন যুগের যানযট ভেঙ্গে দখিনের জনপদে স্বস্তি।  কুয়াকাটা-ঢাকা রুটে এবারে ফেরি যুগের ইতি ঘটেছে। উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। ফেরিবিহীন যান চলাচলের নতুন যুগে প্রবেশ করবে এ অঞ্চলের মানুষ। স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণার পর থেকে পুরো বাংলাদেশের মতো আনন্দের জোয়ার বইছে সাগরকন্যা পটুয়াখালীর প্রতিটি জনপদে। পায়রা সেতুর উদ্বোধনের আমেজ কাটতে না কাটতেই স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণা করেছে সেতু বিভাগ।
 
দীর্ঘ ৩ যুগের সড়ক ভোগান্তি ভেঙ্গে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলা এখোন শুধু সময়ের অপেক্ষা। পটুয়াখালী-ঢাকার রুটের আধুনিক ডিজাইনে র্নিমিত দৃষ্টি নন্দন “পায়রা সেতুর” উৎসব আমেজ না মুছতেই  স্বপ্নের “পদ্মা সেতুর” নিয়ে আনন্দের জোয়ার বইছে এ জনপদের ঘরে ঘরে। শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সীমা বদ্ধ নয়, দলমত র্নিবিশেষে এ আলোচনায় সরগরম হয়ে উঠেছে প্রত্যন্ত অঞ্চল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে আবেগ ঘন স্টাটাস দিচ্ছেন স্বপ্ন সারথিরা। এসকল ধারাবাহিক উন্নয়নে দক্ষিনাঞ্চলের অর্থনীতিতে যোগ হবে অপূরনীয় ও নতুন অধ্যায়। র্দীঘ বছর পেড়িয়ে এ অঞলের ব্যবসা-বাণিজ্যেও বয়ে আনবে সাফল্যের উদ্যম এমন প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের। আগামী ২৫ জুন স্বপ্নের “পদ্মা সেতু” খুলে দেয়া হবে, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমন ঘোষনা দিলে দখিনের জনপদে আনন্দের জোয়ার বইতে শুরু করে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর শুভ উদ্বোধন করবেন। 
 
এর পূর্বে ২০২১ সালের ২৪ অক্টোবর ঢাকা-কুয়াকাটা রুটের প্রমত্তা পায়রা নদীর উপরে র্নিমিত “পায়রা সেতুর শুভ উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৪৪৭ কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী সেঁতুর আদলেই এ·ট্রা ডোজ ক্যাবল পদ্ধতিতে পায়রা সেতু নির্মানে সময় লেগেছে ৫ বছর ৪ মাস। সেতুতে থাকা ১৬৭টি ব· গার্ডার সেগমেন্টের কারণে দূর থেকে দেখলে মনে হবে এটি শূন্যে ভেসে আছে। ১৪৭০ মিটার দৈর্ঘ্য সেতুটি নির্মাণে বসানো হয়েছে ১৩০ মিটার দৈর্ঘ্যরে বেশ কিছু পাইল। এসব পাইল পদ্মা সেতুতে বসানো পাইলের থেকেও অধিক ক্ষমতা সম্পন্ন বলে জানায় প্রকল্প পরিচালক। ৩২টি স্প্যানের মূল সেতুটি বিভিন্ন মাপের ৫৫টি টেস্ট পাইলসহ ১০টি পিয়ার, পাইল ও পিয়ার ক্যাপের ওপর নির্মিত। এছাড়াও সর্বোচ্চ জোয়ারে নদীর উপরিভাগ থেকে ১৮.৩০ মিটার উঁচুতে থাকবে এ সেতুটি। ৪ লেন বিশিষ্ট এই সেতুর উভয় পাশে নির্মিত হয়েছে ১২৬৮ মিটার দৈর্ঘ্যরে অ্যাপ্রোচ সড়ক। আধুনিক ডিজাইনে স্থাপন করা হয়েছে আলোকসজ্জাও। শুধু সেতু‘ই নয়, সেতুর আলোতে ঝলমল করছে পায়রা নদী সংলগ্ন এলাকা। এছাড়া বাংলাদেশে এই প্রথম পায়রা সেতুতে বসানো হয়েছে হেলথ মনিটরিং সিস্টেম। ভূমিকম্প, বজ্রপাত এবং ওভারলোডেড গাড়ির ¶েত্রে এই সিস্টেম দেবে আগাম সংকেত।  
পায়রার বুকে শুধু “পায়রা সেতু” নয়, পায়রা নদীর বুক চিরে জেগে ওঠা দীঘল ভুমিতে গড়ে উঠেছে শেখ হাসিনা সেনা নিবাস। সেতুর পশ্চিম-উত্তর প্রান্তে জন্ম নিয়েছে এক দ্বীপ নগরীর। রাতের আধারে দেখলে মনে হয় উত্তাল পায়রার জলে ভাসছে দৃষ্টিনন্দন কোন দৈবিক নগরী। 
 
এছাড়াও কলাপাড়া উপজেলা আন্দারমানিক নদীর উপরে প্রায় ১৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে সৈয়দ নজরুল সেতু। ২০১২ সালের দিকে কলাপাড়া থেকে কুয়াকাটা সড়ক পথের ২২ কিলোমিটারের আন্দারমানিক নদীতে ৬৫ কোটি ১ লাখ ৮৫ হাজারর টাকায় নির্মিত হয়েছে শেখ কামাল সেতু। সোনাতলা নদীর উপরে ৬৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে শেখ জামাল সেতু এবং শিববাড়িয়া নদীতে ২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে শেখ রাসেল সেতু নির্মিত হয়েছে। এই তিনটি সেতুর স্থানে ছিল সনাতন পদ্ধতির তিনটি ঝুঁকিপূর্ন সেতু। 
এসকল উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় পটুয়াখালী জেলা শহর সংলগ্ন আউলিয়াপুর এলাকায় ৪১৩ একর জমিতে ৮ হাজার কোটি টাকায় ব্যয়ে নির্মান হতে যাচ্ছে ইপিজিট প্রকল্প। যেখানে হাজারো কর্ম সংস্থানের সুযোগ রয়েছে। জেলা শহরে ৬৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে ৫শ বেডের মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। পটুয়াখালী থেকে মির্জাগঞ্জ, বরগুনা, বেতাগী, পিরোজপুর, কাঠালিয়া, ঝালকাঠি, কচুয়া, বাগেরহাট এবং খুলনা বিভাগের যাতায়াত ভোগান্তি কমাতে ১০৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৬৯০ মিটার দৈর্ঘ্যরে সেতু নির্মান প্রকল্প বাস্তবায়নের চুক্তি হয়েছে বলে নিশ্চিৎ করেছে সেতু বিভাগ। 
 
এছাড়াও পটুয়াখালী জেলা শহর থেকে বাউফল কালাইয়া, দশমিনা গলাচিপা এবং ভোলা জেলার সাথে যোগাযোগ সহজ করতে শহর সংলগ্ন লোহালিয়া নদীর উপরে প্রায় ৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে স্টীল স্প্যানের সেতু র্নিমান প্রকল্প শেষের দিকে। কুয়াকাটা পর্যটন শিল্পকে আরো সমৃদ্ধ করা এবং প্রকৃতিক র্দুযোগ থেকে বাচাতে পাউবো কর্তৃক হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে গ্রোয়েন বাঁধ প্রকল্প চুরান্তের দিকে। ছাড়াও বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ২৭৭ কোটি ৪৫ লাখ, ২৫ হাজার টাকা ব্যয়ে উপকুল উন্নয়ন বাধ প্রকল্প শেষের দিকে। একই সাথে কুয়াকাটা থেকে ভাঙা পর্যন্ত ৫ হাজার কোটি টাকায় ব্যয়ে রেল সড়ক র্নিমানের জন্য জমি অধিগ্রহন প্রকল্প শীঘ্রই শুরু হবে এবং কুয়াকাটা থেকে ভাঙা সড়ক পথের ঝুকিপূর্ন স্থান ও বাক প্রশস্ত করতে ৭০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে বলে নিশ্চিৎ করেছেন সওজ। নলুয়া-বাহের চর রুটের পান্ডব নদীতে ১ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে সেতু র্নিমান প্রকল্পের কাজ শীঘ্রই শুরু হবে। এছাড়াও পটুয়াখালী,বরিশাল থেকে বাউফল কালাই,দশমিনা সড়ক পথের বগা ফেরীঘাট সংলগ্ন কারখানা নদীতে ১ হাজার কোটি বাংলাদেশ চীনমৈত্র নবম সেতু নির্মান প্রকল্প চলমান রয়েছে। 
 
বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড.আফজাল হোসেন বলেন-
বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর ২০১৩ সালের ১০ নভেম্বর জাতীয় সংসদে পায়রা পোর্ট কর্তৃপক্ষ গঠন করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই মাসেরই ১৯ নভেম্বর পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার রামনাবাদ নদীর তীরে প্রায় সাত হাজার একর জায়গাজুড়ে পায়রা সমুদ্রবন্দরের নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন। ২০১৬ সালের ১৩ আগস্ট পদ্মা সেতুর পাথর নিয়ে এমভি ফরচুন বার্ড নামের জাহাজ প্রথম পায়রা বন্দরে বাণিজ্যিক জাহাজ হিসেবে নোঙর করে। পদ্মা সেতু নির্মাণযজ্ঞের অধিকাংশ মালামাল, পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের যন্ত্রপাতিসহ বিভিন্ন মালামাল খালাস করে পায়রা এখন পুরোপুরি বাণিজ্যিক বন্দরে রূপ নিচ্ছে বলে দাবি বন্দর কর্তৃপক্ষের। বন্দর সূত্র জানায়, শুধু ২০১৮ সালে এ বন্দর থেকে ৩ লাখ ১৫ হাজার ২১২ টন পাথর আনলোড করা হয়েছে। ২০১৯ সালে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের কয়লাসহ ২ লাখ ৯৯ হাজার ৯৯২ টন পণ্য, ২০২০ সালে এক দশমিক চার মিলিয়ন টন এবং ২০২১ সালে এক দশমিক পাঁচ মিলিয়ন টন পণ্য খালাস করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। পায়রা বন্দরের ধারাবাহিক অগ্রগতি এবং ২০৩০ সালে পুরোপুরি বন্দর চালু হলে কয়েক লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে এই বন্দরে। 
 
পটুয়াখালী এক আসনের এমপি আলহাজ্ব শাহজাহান মিয়া বলেন-পায়রা বন্দরের কারণে দক্ষিণাঞ্চলের চেহারা পাল্টে যেতে শুরু করেছে। এতদিন বাধা ছিল পদ্মা নদীর সেতু। সেতুটি যান চলাচলের উন্মুক্ত হলে এ অঞ্চলের মানুষকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হবে না। তিনি আরও জানান, ইতোমধ্যে সরকার পটুয়াখালী সদর উপজেলার আউলিয়াপুরের পঁচাকোড়ালিয়া মৌজায় ৪১০ একর জমিতে ইপিজেড নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। নির্মাণাধীন ইপিজেডের কারণে এ অঞ্চলে নতুন নতুন দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আসতে শুরু করেছে। জমির দাম বহুগুণ বেড়ে গেছে। প্রায় আট হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ইপিজেড চালু হলে শুধু সেখানেই দেড় লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে দাবি করেন তিনি।
 
কলাপাড়া চার আসনের এমপি আলহাজ্ব মহিব্বুর রহমান বলেন-আন্দারমানিক নদীতে র্নিমিত সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর কুয়াকাটা সংলগ্ন অপর সম্ভবনাময় সমুদ্র সৈকত গঙ্গামতির সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও সমৃদ্ধ হয়েছে। এছাড়াও এই সেতুর ফলে পায়রা বন্দরে পন্য বহন সহজতর হয়ে উঠবে। এছাড়াও রামনাবাদ নদীর তীরে ১ হাজার এক জমিতে ২১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে গড়ে উঠেছে দৃষ্টি নন্দন “১৩২০ মেগওয়াট তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প”। তাপ বিদ্যুৎ সংলগ্ন রামনাবাদ নদীর তীরে প্রায় ৭ হাজার একর জমিতে গড়ে উঠেছে দেশের তৃতীয় “পায়রা সমুদ্র বন্দর” এ পর্যন্ত আনুসাঙ্গিক সুবিদা,টার্মিনাল নির্মান ও ক্যাপিটাল ড্রেজিং প্রকল্পে অনুমোদিত ব্যয় ১৩৮০০ কোটি টাকা। 
 
পটুয়াখালীর সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা হেলেন বলেন, ২০৪১ সালের যে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন আমরা দেখি, তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণাঞ্চলের সমুদ্র উপকূল থেকে শুরু করেছেন। আগামী প্রজন্ম এর সুফল ভোগ করবে বলে দাবি করেন তিনি।
 
পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ কাজী আলমগীর বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করার সাহস আমার নেই। যে পটুয়াখালীর শেষে ছিল খালি, তা আজ প্রধানমন্ত্রী কানায় কানায় পরিপূর্ণ করে দিয়েছেন। পদ্মা সেতু উদ্বোধন হলে এর সুফল ভোগ করবে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ।
 
পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রোভিসি ও কৃষি অনুষদের ডিন প্রফেসর মোহাম্মদ আলী এ বিষয়ে বলেন- একটা সেতু যে কীভাবে অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলতে পারে, তা পদ্মা সেতু চালু হওয়ার ছয় মাসের মধ্যেই মানুষ বুঝতে পারবে। তিনি বলেন, পটুয়াখালী জেলায় শাকসবজি উৎপাদন কম হয়, আবার তরমুজ, ডাল, ধান ও মাছ উদ্বৃত্ত থাকে। পদ্মা সেতু চালু হলে দ্রুততম সময়ে দুটোর মধ্যে একটা সমন্বয় হবে। এখানে যেটা নেই, সেটা বাইরের জেলা থেকে আসবে, আবার এখানের পণ্য কম সময়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলে যাবে। বিশেষ করে এখানকার ইলিশ। পণ্য নষ্ট হওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকবে না। দাম অস্বাভাবিক হওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকবে না। তিনি আরও বলেন, শুধু যোগাযোগ ব্যবস্থার অপ্রতুলতার কারণে দক্ষিণাঞ্চলে এখনো এগ্রোবেজ বড় কোনো শিল্পকারখানা গড়ে ওঠেনি। পদ্মা সেতু চালু হলে খুব অল্প সময়ের মধ্যে এখানে কৃষিনির্ভর শিল্পকারখানা চালু হবে এবং জিডিপিতে এখানকার কৃষি অত্যন্ত বড় ভূমিকা রাখবে বলে দাবি করেন তিনি।
 
পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহম্মেদ বলেন-পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য নিয়ে দখিনের জনপদে এক মাইল ফলক স্থাপন করছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতুর ফলে পাল্টে যাবে এ অ লের যাটজট ভোগান্তিসহ সনাতন পদ্ধতির লক্কর-ঝক্কর যোগাযোগ ব্যবস্থা। চিরচেনা ভোগান্তি থেকে রেহাই পাবে সাধারন মানুষ গুলো। ব্যবসা-বাণিজ্যেও বয়ে আনবে ব্যাপক সাফল্য। 
 
পটুয়াখালী চেম্বার অফ কর্মাসের সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন বলেন -শুধু পদ্মা সেতু নয়, পায়রা সেতু, তৃতীয় সমুদ্র পায়রা বন্দর, তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প, ইপিজেট প্রকল্প, মেডিকেল কলেজ, সেনা নিবাসসহ ধারাবাহিক উন্নয়নের স্রোতে দখিনের অবহেলিত চিত্র উন্নয়ন জোয়ারে ভেসে গেছে। এ অ ল আজ কানায় কানায় পরিপূর্ন। গ্রামীন জনপদে সড়ক উন্নয়নের ফলে পাল্টে দিয়েছে অবহেলিত জনগোষ্ঠির জীবনমান। এসকল উন্নয়নে কর্ম সংস্থান পেয়েছে জীবিকার তাগিতে ছোটা মানুষ গুলো।
 
কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন- কুয়াকাটায় আরও বড় বড় বিনিয়োগ আসবে এবং প্রচুর কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে এছাড়া যদি সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা যায়, তা হলে কুয়াকাটা থেকে সুন্দরবন, সোনার চর, চর বিজয়, কুকরি-মুকরির মতো দৃষ্টিনন্দন স্থানগুলোতেও পর্যটকরা ভ্রমণ করবেন। তিনি আরও জানান, মসৃণ যোগাযোগ ব্যবস্থাকে মাথায় রেখে সরকার একটি গুচ্ছ পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন। সেটি বাস্তবায়ন হলে শুধু কুয়াকাটায় অর্ধলক্ষাধিক লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং পর্যটননির্ভর অর্থনীতিতে একটি বড় পরিবর্তন আসবে।
 
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন- এ বছর জেলায় ৮৬ হাজার ৪৩১ হেক্টরে উচ্চফলনশীল ও স্থানীয় জাতের মুগের আবাদ করা হয়েছে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে এক লাখ ৩১ হাজার ২৫০ টন। কেজিপ্রতি ৬০ টাকা দরে বিক্রি করা হলেও এবার পটুয়াখালীর চাষিরা এক হাজার কোটি টাকার মুগ ডাল বিক্রি করবে। পদ্মা সেতু চালু হলে মসৃণ যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে এ ডালের দাম কৃষক পর্যায়ে দেড়গুণ বৃদ্ধি পাবে বলে দাবি করেন এই কর্মকর্তা। তিনি আরও জানান, পটুয়াখালী থেকে সারা দেশে তরমুজ সরবরাহ করা হয়। শত শত কোটি টাকার তরমুজ আগে নষ্ট হতো পরিবহনের কারণে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরিঘাটে পণ্য নিয়ে বসে থাকার ফলে তা পচে যেত। এখন কিন্তু সেটার সম্ভাবনা নেই। চাষিরা এখন অনেক ভালো দাম পাবেন কৃষিপণ্যের।
 
উপকূলের সবচেয়ে বড় মৎস্যবন্দর আলীপুর-মহিপুর মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দিদার উদ্দীন তালুকদার মাসুম ব্যাপারী বলেন- প্রতিবছর কয়েকশ কোটি টাকার মাছ মাওয়া ঘাটে পচে যেত। টনকে টন মাছ ফেলে দিতে হয়েছে। মহাজনদের লাখ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। এখন পদ্মা সেতু চালু হলে হাজার হাজার কোটি টাকার ইলিশ নিয়ে তাদের আর ভাবতে হবে না। কুয়াকাটা থেকে ঢাকা পর্যন্ত চার থেকে সাড়ে চার ঘণ্টায় সমুদ্রের তাজা ইলিশ তারা সরবরাহ করতে পারবেন।
 
অ্যাম্বুলেন্স চালক মামুন বলেন-র্দীঘ ৩৫ বছর অ্যাম্বুলেন্সে রোগী বহন করছি। পটুয়াখালীর লেবুখালীর পায়রা নদীর ফেরীঘাট এবং পদ্মা নদীর ফেরীঘাটে সঠিক সময়ে পারাপার হতে না পারায় অগনিত রোগীর মৃত্যু দেখেছি। শতশত মৃতের পরিবারের কান্নার সাক্ষী আমি নিজেই। আজ সেই কান্নার অবসান ঘটিয়ে ¯^স্তি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমি এই  বাংলার রতœ মহীয়সী নারী জন্য মহান আল্লাহর কাছে র্দীঘায়ু কামনা করছি। 
 
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন- আগামীতে দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক করিডর হবে পটুয়াখালী জেলা। দেশের তৃতীয় বৃহত্তম অঞ্চলে রূপান্তরিত হবে এটি। পায়রা বন্দর, পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, পর্যটনকেন্দ্র কুয়াকাটা, আউলিয়াপুর ইপিজেড, শেখ হাসিনা সেনানিবাস, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজসহ একটি অঞ্চলে যা যা প্রয়োজন, সবই পটুয়াখালীতে দৃশ্যমান। কুয়াকাটা থেকে ঢাকা ফেরিবিহীন মসৃণ যোগাযোগ। শুধু পটুয়াখালীতেই আগামী দু-এক বছরের মধ্যে ছয় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। পায়রা নদীতে দ্বিতীয় সেতু নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। লোহালিয়া নদীর ওপর সেতু নির্মাণের কাজ সমাপ্তের পথে। বগা এবং গলাচিপায় সেতু নির্মাণের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এ ছাড়া নদীপথ ড্রেজিং করে চলাচল স্বাভাবিক রাখা হচ্ছে। আগামী দিনে নতুন স্বপ্নের জাল বুনবে পটুয়াখালীর মানুষ- সেটাই স্বাভাবিক।
 
পদ্মা সেতু চালু হয়ে গেলে সম্ভাবনার নতুন দিগন্তে প্রবেশ করবে দক্ষিনাঞ্চলের জনগন। 

এমএসএম / জামান

গলাচিপায় জেলেদের মাঝে বকনা বাছুর ও জাল বিরতণ

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে কাশিয়ানীতে বর্ণাঢ্য র‍্যালি

বকশীগঞ্জে পদ্মা সেতু উৎসব পালিত

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে উলিপুরে আনন্দ শোভাযাত্রা

কুষ্টিয়ায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সমাবেশ

বাঘায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে ইসলামী একাডেমীর আনন্দ র‍্যালি

পাঁচবিবিতে দোকান প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

দুর্গাপুরে বন্যাদুর্গতদের মাঝে পৌর মেয়র আলালের চাল বিতরণ

ভূঞাপুরে মদ খেয়ে স্কুলের সামনে দুই বন্ধুর মাতলামি

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উদযাপন উপলক্ষে ঝিনাইদহে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে বর্ণাঢ্য আনান্দ র‌্যালি

লালমনিরহাটে ফেনসিডিলসহ রংপুরের স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেফতার

প্রতিবন্ধীকে বিবস্ত্র করে মারপিট ও হত্যাচেষ্টা, ভিডিও ভাইরাল

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসনের আনন্দ র‌্যালি ও আলোচনা