নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে হাবিপ্রবিতে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

news paper

আবু সাহেব, হাবিপ্রবি

প্রকাশিত: ২৬-৩-২০২৩ বিকাল ৭:১৮

41Views

যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত হয়েছে। দিনটি উপলক্ষে রবিবার (২৬ মার্চ) সূর্যোদয়ের সাথে সাথেই বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য কর্তৃক প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। পতাকা উত্তোলনের পরপরই উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম. কামরুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেন। 
 
কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল ৯.৩০ টায় উপাচার্যের এর নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের অংশগ্রহণে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদগণের স্মৃতির প্রতি পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মোঃ সাইফুর রহমান, প্রক্টর প্রফেসর ড. মো. মামুনুর রশীদ, জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ও ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক প্রফেসর ড. ইমরান পারভেজ। ক্রমান্বয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন বিভিন্ন অনুষদের ডীনবৃন্দ, শিক্ষক—কর্মকর্তাগণের বিভিন্ন সংগঠন, হাবিপ্রবি ছাত্রলীগ এর নেতৃবৃন্দ, কর্মচারী সংগঠনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। 
 
পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সকাল ১০ টায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে উপাচার্যের বাণী বিতরণ করা হয়। এরপর সকাল ১০ টা ০৫ মিনিটে টিএসসি প্রাঙ্গণে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন উপাচার্য। ১০.১৫ মিনিটে টিএসসি এর নিচতলায় ২৫ মার্চ গণহত্যা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান। 
 
পরবর্তীতে শিশুদের অংশগ্রহণে যেমন খুশি তেমন সাজো প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় এবং সকল প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন মাননীয় ভাইস—চ্যান্সেলর। বাদ জোহর হাবিপ্রবি’র কেন্দ্রীয় মসজিদে শহিদগণের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া করা হয়। এছাড়াও দিনটি উপলক্ষ্যে প্রশাসনিক ভবন, প্রধানগেট ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্থর চত্তরে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়।
 
এদিকে, ইতিহাসের জঘন্যতম অপারেশন সার্চলাইটের অধীনে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী যে বর্বরতা চালিয়েছিল তার স্মরণে সারা দেশের সাথে সংগতি রেখে শনিবার দিবাগত রাত ১০.৩০ থেকে ১০.৩১ মিনিট পর্যন্ত হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্ল্যাকআউট কর্মসূচি পালন করা হয়। এসময় পুরো ক্যাম্পাস অন্ধকারে ঢেকে যায় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এর উপস্থিতিতে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে সকলে ১ মিনিট নীরবতা পালন শেষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। এ সময় ২৫ শে মার্চ গণহত্যা দিবসের আন্তজার্তিক স্বীকৃতির দাবিও জানাই উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান।

আরও পড়ুন