ঢাকা শনিবার, ২১ মে, ২০২২

পূজা পরিষদের সম্মেলন নিয়ে টান টান উত্তেজনা


প্রবীর চৌধূরী রিপন photo প্রবীর চৌধূরী রিপন
প্রকাশিত: ১৪-৫-২০২২ দুপুর ২:২
দ্বিধাবিভক্তির মধ্যদিয়ে স্বার্থের অন্বেষণ করতে গিয়ে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা ও বিজয়নগর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বের রেশ ছড়িয়ে পড়ার পর আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে অবশেষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সম্মেলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আদালত। একই স্থানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের দুই গ্রুপের সম্মেলন ডাকায় অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে একটি আবেদনের ওপর পর্যালোচনা শেষে গত ১১ মে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদরের সিনিয়র সহকারী জজ আদালত এ নিষেধাজ্ঞা জারি করে।
 
সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়া না হওয়া নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বিরাজ করছে টান টান উত্তেজনা। দ্বিধাবিভক্ত পূজা উদযাপন পরিষদ এখন রূপ নিয়েছে ৪টি গ্রুপে। যে কোনো সময় সংঘর্ষের আশঙ্কায় ইতোমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশ শক্ত অবস্থান নিয়েছে। বাড়ানো হয়েছে নজরদারি। সম্মেলনস্থলে করা হয়েছে পুলিশ মোতায়েন। তবুও উত্তেজনার রেশ যেন কাটতে চাইছে না।
 
জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের আনন্দময়ী কালীবাড়িতে ১৪ মে দ্বিবার্ষিক সম্মেলন ডাকেন পূজা উদযাপন পরিষদের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একাংশের নেতৃবৃন্দ। এতে প্রধান অতিথি করা হয় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জেএল ভৌমিকসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে। একই স্থানে অপর একটি পক্ষ বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দারসহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দকে আমন্ত্রণ জানিয়ে সম্মেলনের সিদ্ধান্ত নেয়। এরও আগে তৃতীয় আরেকটি পক্ষ পূজা পরিষদের সাংগঠনিক কার্যক্রম ও সম্মেলন আয়োজনের বৈধতা নিয়ে আদালতে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে। সর্বশেষ চতুর্থ পক্ষ কেন্দ্রীয় পূজা পরিষদের নেতৃবৃন্দের কাছে নতুন একটি আহ্বায়ক কমিটি জমা দিয়েছে। চতুর্মুখী কমিটি গঠনের কার্যক্রম নিয়ে পক্ষগুলোর মাঝে বিরাজ করছে উত্তেজনা। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হিন্দু সম্প্রদায়। আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারির পর সম্মেলনকে ঘিরে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে পূজা উদযাপন পরিষদের একপক্ষের নেতৃবৃন্দ প্রশাসনের সাথে সমন্বয় রাখছেন। 
 
সূত্র জানায়, দ্বিধাবিভক্ত দলের একটি অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খোকন কান্তি আচার্য্য ও অপর অংশে আছেন সোমেশ রঞ্জন রায়। তৃতীয়পক্ষে আছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবোধ চন্দ্র দাস এবং চতুর্থ অংশে আছেন কাঞ্চন কুমার পাল। 
 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ জানান, পূজা উদযাপন পরিষদের দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দল এখন চরমে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে ভাঙন-ফাটল দেখা দেয়ায় এর রেশ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। এরই জেরে দীর্ঘদিন যাবৎ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়ও নানা ঘটন-অঘটনের মধ্যদিয়ে বিভক্তি দেখা গেলেও সম্প্রতি সংগঠনের ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের স্বেচ্ছাচারিতামূলক আচরণে পকেট কমিটি গঠনসহ বিভিন্ন কারণে আদালতের শরণাপন্ন হন।
 
গত ১৯ এপ্রিল ব্রাহ্মণবাড়িয়া বারের আইনজীবী রঞ্জিত মল্লিক বাদী হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে একটি মামলা করেন (যার নং দেঃ ১৯৬/২২)। এই মামলায় তিনি ৯ জনকে বিবাদী করেছেন। তিনি পূজা পরিষদের জেলার সাংগঠনিক কার্যক্রমের বৈধতা নিয়ে এ মামলাটি আনয়ন করেন।
 
এরপর গত ২৮ এপ্রিল বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পরও তাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সিনিয়র সহকারি জজ আদালতে বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবোধ চন্দ্র দাস আদালতের শরনাপন্ন হন (যার নং- দে: ২২৪/২২ইং)। এ মামলায় বাদীপক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবোধ চন্দ্র দাসসহ আরো ৬ জন স্বাক্ষর করেছেন। আর এতে বিবাদী করা হয়েছে ৯ জনকে। মূল বিবাদী করা হয়েছে ৮ জনকে। তারা হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার অবৈধ কমিটির কথিত সভাপতি নীতিশ রঞ্জন রায়, কথিত সাধারণ সম্পাদক সাধন চন্দ্র চৌধুরী, জেলা কমিটির কথিত সভাপতি সোমেশ রঞ্জন রায়, কথিত ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিব সাহা বাপ্পী, কথিত সহ-সভাপতি পরিমল রায়, মনোরঞ্জন দেব নাথ, তপন চৌধুরী, কথিত কোষাধ্যক্ষ রতন লাল দে। এছাড়া কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জে.এ ভৌমিককে মোকাবিলা বিবাদী করা হয়েছে।
 
পূজা উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক খোকন কান্তি আচার্য্য  বলেন, আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসবীর শান্তি চাই। একজন ব্যক্তির কাছে সংগঠন জিম্মি থাকবে তা হতে পারে না। আমরা জেলার জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের লোকজনসহ কেন্দ্রীয় ও জেলার পূজা পরিষদের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে একটি সুন্দর ও সফল সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করতে চাই।
 
পূজা পরিষদের সদস্য বিদ্যুৎ বৈদ্য বলেন, আমরা সংগঠনের স্বার্থে কাজ করছি। শুধুমাত্র একজন ব্যক্তির কাছে জেলাবাসী জিম্মি থাববে তা হবে না। তার যেভাবে খুশি সেভাবে সংগঠন চালাবে এটা কী করে হয়? গঠনতন্ত্রের মধ্যদিয়ে সংগঠন চলতে হবে। আর আমরা তাই চাই।
 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার অফিসার ইনচার্জ এমরানুল ইসলাম বলেন, আমি সংগঠনের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলেছি। পরিস্থিতি শান্ত রাখাসহ বিভিন্ন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে নেতৃবৃন্দকে। যে কোনো অস্বাভাবিক পরিস্থিতি শক্ত হাতে দমন করা হবে। তিনি আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। 
 
প্রসঙ্গত, অ্যাডভোকেট রঞ্জিত মালাকারের দায়েরকৃত মামলায় গত ১১ মে একটি আবেদন পর্যালোচনা করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সিনিয়র সহকারী জজ আদালত। এ সময় আদালত (আদেশ নং- ০৪, তারিখ- ১১.০৫.২২) বিবাদীপক্ষের আপত্তি দাখিল পর্যন্ত স্থিতাবস্থার আদেশ জারি থাকবে ঘোষণা দেয়। একই ভাবে জেলা-উপজেলা-পৌরসভা বা কোনো ইউনিটের সম্মেলন আয়োজন না করার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এমএসএম / জামান

ভোলায় কালবৈশাখী ঝড়ে বালুবোঝাই বাল্কহেড ডুবি

ধামরাইয়ে মারামারি থামাতে এসে যুবকের মৃত্যু

উলিপুরে বাদামের বাম্পার ফলন তিস্তা নদীর গর্ভে

৫ ঘণ্টা পর খুলনার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

বন্যায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী, পৌঁছেনি ত্রাণ

গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাণ গেল পুলিশ সদস্যের, আহত ৭

সিলেটে কমতে শুরু করেছে বন্যার পানি

কালবৈশাখীর তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড কুষ্টিয়া

খুলনার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ

ট্রেনের টিকিট কালোবাজারিতে জিডির জের ধরে খুলনার ৪ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বদলি

চাটখিলে রঙ্গের কন্টিনার ভর্তি পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু

সাতক্ষীরা পাটকেলঘাটায় স্বর্ণ ধরে মাদক ফাঁসানোর ঘটনায় এসপি আলতাফ হোসেন চাকরিচ্যুত

পাংশায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় কলিমহর ইউনিয়নের বিজয়